গরুর পরে এবার মাছ খাওয়াতেও ‘হিন্দু’ নিষেধাজ্ঞা!

231238fish.jpgগরুর পরে এবার হিন্দু ধর্মালম্বীদের ঈশ্বরের আসনে বসতে চলেছে আর এক জীব ‘মাছ’। এবার মাছ নিয়ে ফোতয়া জারি করেছে ভারতের ‘সারা ভারত মৎস রক্ষা কমিটি’ নামের একটি সংগঠন। ‘মৎস-রক্ষক’-দের মতে, মাছ হল ভগবান বিষ্ণুর একটি অবতার। অর্থাৎ তাদের মতে মাছ খাওয়া আর ঈশ্বরকে খাওয়া সমান। এই সংগঠনেরই এরকম একটি পোস্ট দেশটির সোশ্যাল মিডিয়াতে ঘুরপাক খাচ্ছে। কিন্তু গরুর মতো মাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে সারা ভারতে নরহত্যার মতো ঘটনা ঘটে কি না তাই এবার দেখার বিষয়।
সূত্র : এবেলা 

🖌 বৃষ্টিতে বন্যাতঙ্ক , রোদে ছিন্তায়াতঙ্ক ! তিলোত্তমা চট্টগ্রাম এখন আতঙ্কের নগরী ।

বৃষ্টিতে বন্যাতঙ্ক , রোদে ছিন্তায়াতঙ্ক ! তিলোত্তমা চট্টগ্রাম এখন আতঙ্কের নগরী ।
 
এ যেন জলে কুমির ডাঙ্গায় বাঘ। বস্তুতই বড় বিশ্রী ও মারাত্মক আকার ধারণ করেছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের বর্তমান পরিস্থিতি। স্মরণকালে মানুষ এমন জলাবদ্ধতাও দেখেনি এমন ছিনতাই-ও দেখেনি। জলাবদ্ধতা নিয়ে আর বেশি কিছু বলার নাই আজকের বিষয় ছিনতাই ।
 
ছিনতাইয়ের শিকার হয়ে মৃতুবরণও করতে হচ্ছে
২০১৩ সালে আমবাগান এলাকায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে আবদুল কাইয়ুম নামের এক পুলিশ কনস্টেবল নিহত হয়েছিলেন। এ ঘটনার তিন দিন পর ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে কনস্টেবল হত্যা মামলার প্রধান আসামি সুমনকে অস্ত্রসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
গত ১৩ জুন রাতে নগরীর জামালখানে আইডিয়াল স্কুলের সামনে শিরিন আক্তার (২৪) নামে এক তরুণী ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন। ছিনতাইকারীরা চলন্ত রিকশায় ব্যাগ টান দেওয়ায় পড়ে গিয়ে তিনি মাথায় গুরুতর আঘাত পান। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছয়দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় পুলিশ এরশাদ উল্লাহ (৩০) নামে এক পেশাদার ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করে।
 
 
বেশ কিছুদিন ধরে চট্টগ্রাম নগরীতে আশঙ্কাজনকভাবে ছিনতাই বেড়ে গেছে। আরও আশংকার বিষয় হলো, ছিনতাইয়ের ঘটনাগুলো ঘটছে দিনে দুপুরে।
চলতি বছরের মার্চে চট্টগ্রাম নগরের ওয়াসা মোড়ে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের সড়কে বিকেল প্রকাশ্যে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। বিকেল সাড়ে চারটায় ব্যস্ত এই সড়কে ছিনতাইকারীরা অস্ত্র ঠেকিয়ে অটোরিকশার দরজা খুলে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। তিনটি মোটরসাইকেলে সাতজন ছিনতাইকারী ছিল। কোনো মোটরসাইকেলের পেছনে কোনো নম্বরপ্লেট ছিল না।
এছাড়া সম্প্রতি এ মাসের ১৮ তারিখ চট্টগ্রামে বেড়াতে এসে ছিনতাইয়ের শিকার হন এক চীনা নাগরিক। ঐ দিন সকালে ডবলমুরিং থানার চৌমুহুনী এলাকায় ছিনতাইকারীরা চীনের নাগরিক লি লি লিওয়ের (৩০) কাছ থেকে ব্যাগ টান দিয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় পুলিশ এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।
এর আগে জুন মাসের ২২ তারিখ বৃহস্পতিবার রাতে জাকির হোসেন রোডে ছিনতাই এর শিকার হন ডিনা হ্যানসন নামে এক মার্কিন নারী। পেশায় তিনি নগরীর এশিয়ান ইউমেন ইউনিভার্সিটি শিক্ষক। এসময় সিএনজি অটোরিকশা করে এসে দুই ছিনতাইকারী তার হাতে থাকা ব্যাগটি টান দিয়ে নিয়ে যায়। এসময় তার ব্যাগে ল্যাপটপ, আইপড, মোবাইল, ড্রাইভিং লাইসেন্স, ব্যাংক কার্ড ও নগদ সাত হাজার টাকা ছিল।
আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পারদর্শীতায় ছিনতাইকারীদের একজনকে আটক করতে সমর্থ হয়। তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ছিনতাইকৃত মালামাল।
আটককৃত নাগর পন্ডিত পেশাদার ছিনতাইকারী এবং নগরীর বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলাও রয়েছে। সে দৈনিক সংবাদ মোহনা নামক একটি সংবাদ মাধ্যমের সাংবাদিক পরিচয়ে নম্বর বিহীন সিএনজি ব্যবহার করে এই অপকর্ম করত।
কয়েকটি স্পটে সক্রিয় ছিনতাইকারী চক্র
চিহ্নিত কয়েকটি পেশাদার ছিনতাইকারী চক্রে সক্রিয় রয়েছে নগরী বেশ কয়েকটি স্পটে। প্রায় প্রতিদিন ৮/১০টি গ্রুপ নগরীর অন্ততঃ ১১১ টি স্পটে ছিনতাই করে বেড়াচ্ছে।
বিভিন্ন মার্কেট ও শপিংমলের আশপাশের সড়ক, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, ছোটপুল, বড়পুল, হালিশহর তাসফিয়া থেকে ওয়াপদা মোড়, কাস্টমস সেতু, বন্দর ফটক, ইপিজেড, অলংকার, টাইগারপাস, সিআরবি, পুরাতন রেলস্টেশন, নতুন রেলস্টেশনের মুখ, নিউমার্কেট, কোতয়ালি, লালদীঘির পাড়, প্রবর্তক, কাতালগঞ্জ, শহীদ মিনারের সামনের সড়ক, বক্সিরহাট বিট, ষোলশহর, জিইসি মোড়সহ ও নগরীর বিভিন্ন বস্তির আসেপাশে এই স্পটগুলো চিহ্নিত করেছে সিএমপি।
এসব এলাকায় ব্যাগ টানা গ্রুপ, হামকা পার্টি, গামছা পার্টিসহ ৮/১০টি গ্রুপের নাম উঠে এসেছে। এছাড়া ছিনতাই কাজে বেড়েছে সিএনজি অটোরিকশার ব্যবহার। অটোরিকশা চালকরা ছিনতাইকারীদের সঙ্গে যোগসাজশে নগরীর বিভিন্ন স্থানে ছিনতাই করে।
রেজিস্ট্রেশনবিহীন সিএনজি অটোরিকশা ব্যবহার করে ছিনতাই করে তারা। শুধু রাতে বদলি ড্রাইভার হিসেবে তারা গাড়ি চালায় এবং সুযোগ বুঝে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় রিকশা যাত্রীদের টার্গেট করে ব্যাগ টান দিয়ে নিয়ে যায়।
অভিনব কায়দায় ছিনতাই
প্রকাশ্য দিবালোকে কিংবা রাতের আঁধারে অভিনব কায়দায় বন্দর নগরী চট্টগ্রামে প্রায় প্রতিটি এলাকায় ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা।
গত বছর এপ্রিলে এক ব্যবসায়ী আন্দরকিল্লা এলাকা থেকে টাকা তুলে চান্দগাঁও যাচ্ছিলেন। পথে সিটি করপোরেশন এলাকায় কয়েকজন তরুণ তাদের একজনের বোনকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ তুলে ওই ব্যবসায়ীকে মারধর করে তার টাকার ব্যাগটি নিয়ে পালিয়ে যায়।
এ বছর মার্চে নগরীর চকবাজারে প্রকাশ্যে রিক্সা থামিয়ে দুই কিশোরের কাছ থেকে মোবাইল চাইতে থাকে অপরিচিত দুই যুবক। এরমধ্যে মানুষের ভিড় বাড়লে সটকে পড়ে অন্যজন। নিজেকে কলেজ শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় দেয়া যুবকটি তখনও দাবি করে কিশোরের পূর্ব পরিচিত বলে। পরে তাকে ধরে থানায় নিয়ে গেলে বেরিয়ে আসে আসল পরিচয়। কলেজ শিক্ষার্থী নয়, তারা পেশাদার ছিনতাইকারী।
জুন মাসে নগরীর কোতোয়ালী থানাধীন পুরাতন রেলস্টেশন এলাকায় পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাইয়ের সময় একজনকে আটক করে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। ছিনতাইয়ের সময় একটি ছোরা ও ছিনতাইকৃত পঁচিশ হাজার টাকা সহ হাতে নাতে তাকে আটক করা হয়।
এছাড়া নগরীতে ছিনতাইকারীরা বিভিন্ন জায়গায় পালা করে ছিনতাই করে। একদল ভোরবেলা ছিনতাই করে। তাদের লক্ষ্যবস্তু হন ট্রেন ও দূরপাল্লায় করে আসা যাত্রীরা। তারা সবসময় সিএনজি অটোরিকশা ব্যবহার করে থাকে।
এভাবেই প্রকাশ্যে ও নানান অভিনব কায়দায় ছিনতাইয়ের এমন ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত।
ছিনতাইয়ের শিকার হয়ে মৃতুবরণও করতে হচ্ছে
২০১৩ সালে আমবাগান এলাকায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে আবদুল কাইয়ুম নামের এক পুলিশ কনস্টেবল নিহত হয়েছিলেন। এ ঘটনার তিন দিন পর ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে কনস্টেবল হত্যা মামলার প্রধান আসামি সুমনকে অস্ত্রসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
গত ১৩ জুন রাতে নগরীর জামালখানে আইডিয়াল স্কুলের সামনে শিরিন আক্তার (২৪) নামে এক তরুণী ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন। ছিনতাইকারীরা চলন্ত রিকশায় ব্যাগ টান দেওয়ায় পড়ে গিয়ে তিনি মাথায় গুরুতর আঘাত পান। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছয়দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় পুলিশ এরশাদ উল্লাহ (৩০) নামে এক পেশাদার ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করে।
টার্গেট মোবাইল সেট
বেশীরভাগ ক্ষেত্রে ছিনতাইকারীদের টার্গেট থাকে মোবাইল সেট। প্রতিদিন গড়ে শ খানেক মোবাইল সেট চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে নগরীর ষোলটি থানায়। মূলত রিয়াজউদ্দিন বাজারসহ নগরীর বিভিন্ন মার্কেটে সার্ভিসিং দোকানে বিক্রি হয় এসব মোবাইল সেট।
বিভিন্ন কারিগরি প্রযুক্তি ব্যবহার করে পরিবর্তন করা হয় ডিভাইসের আন্তর্জাতিক পরিচয় বা আইএমইআই নম্বর। ফলে বেশিরভাগ মুঠোফোন উদ্ধার করতে পারে না পুলিশ। এর আগে মে মাসে নগরীর সিঙ্গাপুর-ব্যাংকক মার্কেট এ বিশেষ অভিযান চালায় গোয়েন্দা পুলিশ।
কয়েকটি সেট উদ্ধার হলেও ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকে মূল অপরাধীরা। ডিভাইসের আন্তর্জাতিক পরিচয় পরিবর্তন করার পরও কারিগরি প্রযুক্তির মাধ্যমে সেটি উদ্ধার করা যায় কিনা তার চেষ্টা চলছে জানায় গোয়েন্দা পুলিশ বিভাগ।
প্রতিকার হচ্ছে না
ছিনতাইয়ের ঘটনাগুলোর একটা বড় অংশ থানায় লিপিবদ্ধ হয় না। এ নিয়ে ভুক্তভোগী ও পুলিশের পরস্পরবিরোধী বক্তব্য রয়েছে।
ছিনতাইয়ের শিকার একাধিক ব্যক্তি জানান, ছিনতাই কিংবা প্রতারণার শিকার হয়ে থানায় অভিযোগ দিতে গেলে পুলিশি হয়রানির শিকার হতে হয়। পকেটমার বা ছিনতাইয়ের ঘটনায় পুলিশ মামলা নেয় হারানোর বা চুরির। ফলে এসব মামলায় কাউকে আসামি করা হয় না। যে কারণে ছিনতাইকারীরা সহজে পার পেয়ে যায়।
এমনকি বেশির ভাগ সময় ছিনতাইয়ের শিকার ব্যক্তিরা থানা পুলিশের কাছে অভিযোগ দেন না। ফলে এসব দুর্ধর্ষ ছিনতাইকারীরা থেকে যায় ধরাছোঁয়ার বাইরে। অনেকক্ষেত্রে দেখা গেছে ছিনাতাইকারীকে আটকের পর সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ও স্বাক্ষ্য প্রমানের অভাবে তাকে বেশীদিন আটকে রাখা সম্ভব হয়না। অথবা আইনের ফাঁক গলে তারা দ্রুত বের হয়ে যায়, আবার একই অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পরে।
পুলিশ মনে করছে ছিনতাইকারীদের হালনাগাদ তথ্য না থাকা ও ভুক্তভোগীদের মামলায় অনীহার কারণে চট্টগ্রামে ছিনতাই প্রতিরোধে সাফল্য আসছে না। পুলিশের ভাষ্য, ছিনতাইয়ের শিকার ব্যক্তিরা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করলেও মামলা করতে অনীহার কারণে তারা ছিনতাই প্রতিরোধে তেমন কিছু করতে পারেন না।
মোবাইল ফোন ও নগদ অর্থ হারানোর এসব ঘটনায় থানায় অভিযোগ করা হলেও পুলিশ পাত্তা দেয়না এমন অভিযোগের জবাবে পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মোহাম্মদ আব্দুর রউফ বিষয়টি শিকার করেন। তিনি জানান ছিনতাইয়ের ঘটনায় ‘হারানোর’ জিডি না নিয়ে মামলা নিতে থানাগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া আছে।
বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই ভুক্তভোগীরা আদালতে যাওয়া এড়াতে চান বলে মামলা করেন না। জিডির মাধ্যমে অনেক সময় মোবাইল উদ্ধার হলেও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না থাকায় অপরাধীদের পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারে না।
নগর পুলিশের এক উর্ধতন কর্মকর্তা বলেন, “ছিনতাইয়ে যারা জড়িত হচ্ছে তাদের অনেকে ভাসমান। এক জায়গা থেকে ছিনতাই করে অন্য জায়গায় আশ্রয় নেয়।” তবে ছিনতাইকারীদের ধরতে পুলিশের তৎপরতা আছে এবং ধরাও পড়ছে বলে তিনি দাবি করেন।
bd-hijack (1)
Click/Tap this image to Join the Conversations 

🖌 এইচএসসিতে গড় পাসের হার ৬৮.৯১ শতাংশ

d6404365470305af51c67c5ccdbcb6c4-57b55cf8ccf45.jpgএইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার গড় পাসের হার ৬৮.৯১ শতাংশ। কারিগরিতে পাস ৮১.৩৩ শতাংশ,  ৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৬৬.৮৪ শতাংশ এবং মাদ্রাসা বোর্ডে পাসের হার ৭৭.০২ শতাংশ। সারাদেশে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৭ হাজার ৭২৬। এর মধ্যে ৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৩ হাজার ২৪১ জন।

মাদ্রাসা বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে এক হাজার ৮১৫ জন শিক্ষার্থী। আর কারিগরিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ৬৬৯ জন শিক্ষার্থী।

দিনাজপুর বোর্ডে পাস করেছে ৬৫.৪৪ শতাংশ। রাজশাহী বোর্ডে পাস করেছে ৭১.৩০ শতাংশ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫২৯৪ জন। বরিশাল বোর্ডে পাস করছে ৭০.২৮ শতাংশ।

রবিবার সকাল ১০ টার দিকে সব বোর্ড চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলের সারসংক্ষেপ হস্তান্তর করেন। দুপুর ১টার দিকে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ফলের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী।

সকালে ফল প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করা হলেও দুপুর ২টার পর শিক্ষার্থীরা সংশ্লিষ্ট বোর্ডের ওয়েবসাইট,নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট ও টেলিটক মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে ফল জানতে পারবেন।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান জানান, ‘শিক্ষার্থীরা সংশ্লিষ্ট বোর্ডের ওয়েবসাইট, নিজস্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট ও মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে ফল জানা যাবে।’

এ বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় এবার ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। গত ২ এপ্রিল থেকে ১৫ মে এইচএসসির তত্ত্বীয় এবং ১৬ থেকে ২৫ মে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

🖌 তারকা জুটি তাহসান-মিথিলার বিচ্ছেদ

t-bg_309787.jpgদেশের বিনোদন জগতের অন্যতম সেরা আলোচিত তারকা জুটি তাহসান-মিথিলার মধ্যে বিচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘ এক দশক সংসারের পর তারা পারস্পরিকভাবে এ বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার দুপুরে তাহসান তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে একটি পোস্টের মাধ্যমে দু’জনের মধ্যে বিচ্ছেদের এই খবর জানান।
ইংরেজিতে লেখা পোস্টে তাহসান বলেন, ভারাক্রান্ত হৃদয়ে জানাচ্ছি যে, আমরা যৌথভাবে ডিভোর্স নিতে যাচ্ছি। কয়েক মাস ধরে চলা আমাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব নিরসনের চেষ্টার পর অমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি- সামজিক চাপে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার চেয়ে আমাদের পৃথক হওয়া উত্তম।
তারকা জুটি তাহসান-মিথিলার বিচ্ছেদ

ফেসবুক ওই পোস্টের নিচে তাহসান ও মিথিলা উভয়ের নাম লেখা রয়েছে। যেটা মূলত উভয়ের একই বক্তব্য স্পষ্ট করা হয়েছে।

ওই বার্তায় আরো বলা হয়, আমরা উপলব্ধি করছি এমন সিদ্ধান্তে সম্ভবত আপনারা কষ্ট পাবেন, এজন্য আমরা আন্তরিকভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।
ফেসবুকে পোস্ট করা তাহসানের বার্তাটি হুবহু তুলে ধরা হলো-
‘It is with heavy hearts that we would like to jointly announce that we are getting divorced.
After several months of trying to reconcile our differences, we have decided that we would rather go separate ways than be in a relationship out of social pressure.
We realize that this probably comes as a shock to a lot of you and we wholeheartedly apologize about that.
We have always conducted our relationship with dignity and grace, and we hope that as we consciously uncouple and co-parent, we will be able to continue in the same manner.
We hope you will all treat us both with kindness during this difficult phase of our lives.’
– Tahsan and Mithila
প্রেম করে তাহসান-মিথিলা জুটি ২০০৬ সালে বিয়ে করেন। সংসার জীবনের ১১ বছর কাটিয়ে তারা এই পৃথক হওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন। দু’জনের এক মেয়ে শিশু সন্তান রয়েছে। তার নাম আইরা তাহরিম খান।
তাহসান রহমান খান বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় গায়ক, গীতিকার, সুরকার, গিটার বাদক, কী-বোর্ড বাদক, অভিনেতা, মডেল এবং উপস্থাপক। তার জন্ম  ১৯৭৯ সালে ১৮ অক্টোবর। বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করে দেশের তরুণ প্রজন্মের কাছে তিনি আইকন হিসেবে সমাদৃত।
রাফিয়াত রশিদ মিথিলার জন্ম ১৯৮৪ সালের ২৫ মে। তিনি মিথিলা নামেই বেশি পরিচিত। তিনি একাধারে জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী, অভিনেত্রী এবং মডেল। তিনি গান শিখেছেন হিন্দোল সংগীত একাডেমিতে, নাচ শিখেছেন বেণুকা ললিতকলা একাডেমিতে। আর অভিনয় শিখেছেন লোক নাট্যদলের চিলড্রেনস থিয়েটারে। তিনিও অসংখ্য নাটকে অভিনয় করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন।

🖌 ঢাবি অধিভুক্ত কলেজের মাস্টার্স পরীক্ষা শুরু ১০ সেপ্টেম্বর

image-90952-1500540339ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) অধিভুক্ত সাতটি সরকারি কলেজে অধ্যয়নরত মাস্টার্স শেষ পর্বের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা আগামী ১০ সেপ্টেম্বর শুরু হবে। এছাড়া অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা ১৬ অক্টোবর এবং ডিগ্রি প্রথম ও তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা আগামী ৪ নভেম্বর শুরু হবে।শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে আজ বৃহস্পতিবার ৭টি কলেজের বিভিন্ন বর্ষের পরীক্ষার তারিখ চূড়ান্ত করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। একইসঙ্গে এই রুটিন নোটিশ আকারে জানানো হয়েছে। পরীক্ষা শুরুর তারিখ জানিয়ে নোটিশ দিচ্ছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

পরীক্ষার ওই সূচির দাবিতে আজ সকাল থেকে শাহবাগে আন্দোলন করে ওই ৭ কলেজের শিক্ষার্থীরা। এর এক পর্যায়ে বিক্ষোভের সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশের ছোড়া রাবার বুলেটে ও লাঠিপেটায় দুই শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন।বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সভাপতি আই.কে. সেলিম উল্লাহ খন্দকার জানান, ঢাবি অধিভুক্ত কলেজগুলোর পরীক্ষা তারিখ ঘোষণার বিষয়টি গতকাল এক সভায় আলোচনা হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক আ.আ.ম.স. আরেফিন সিদ্দিক। ওই বৈঠকে কলেজগুলোর পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।তিনি জানান, সাতটি কলেজের পরীক্ষা কেন্দ্রীয়ভাবে নেওয়া হবে। মাস্টার্স শেষ পর্বের পরীক্ষা ১০ সেপ্টেম্বর, অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা ১৬ অক্টোবর এবং ডিগ্রি প্রথম ও তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা আগামী ৪ নভেম্বর শুরু হবে। এছাড়া ডিগ্রি প্রথম বর্ষ, মাস্টার্স প্রথম ও শেষ পর্বের প্রাইভেট (রেজি.) পরীক্ষা ২৫ জুলাই থেকে ২৯ আগস্টের মধ্যে হতে পারে।গত ফেব্রুয়ারি সাতটি সরকারি কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করা হয়। কলেজগুলো হলো- ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ, কবি নজরুল ইসলাম কলেজ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ ও মিরপুর বাঙলা কলেজ। এর আগে কলেজগুলো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ছিল।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়ার পর এসব কলেজের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষাসহ নানা বিষয়ে বিড়ম্বনায় পড়েন। এই সমস্যার সমাধানে ৭ দফা দাবিতে আজ সকাল ১০টার দিকে শাহবাগে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।তাদের অবস্থানের কারণে গুরুত্বপূর্ণ ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে কাঁদুনে গ্যাস ছুড়ে শিক্ষার্থীদের ছাত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ। ওই সময় বেশ কয়েকজনকে আটকও করা হয়।